২১ সন্তানের জন্ম দিয়ে ইতিহাস গড়লেন এই দম্পতি | পড়ুন বিস্তারিত ...

২১ সন্তানের জন্ম দিয়ে ইতিহাস গড়লেন এই দম্পতি

ব্রিটিশ দম্পতি সু ও নোয়েল রেডফোর্ড। এই দম্পতি জুটি মিলে ২১ সন্তানের জন্ম দিয়ে রেকর্ড গড়েছেন। এরইমধ্যে ব্রিটেনের সব থেকে বড় পরিবারের খেতাব ঝুঁড়িতে স্থান পেয়ে পরিবারটি। বর্তমানে স্ত্রী সু’র বয়স ৪৩ বছর এবং স্বামী নোয়েল রেডফোর্ডের বয়স ৪৭ বছর। নোয়েল রেডফোর্ড একজন বেকারি ব্যবসায়ী পেশার সঙ্গে জড়িত আছেন। ব্রিটেনে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনের খবর অনুযায়ী জানা যায়, সু মাত্র ১৩ বছর বয়সেই প্রথম সন্তানের জন্ম দেন। আর এ সময় তার স্বামী নোয়েল রেডফোর্ডের বয়স ১৮ বছর ছিল।

সু ও নোয়েল রেডফোর্ড দম্পতির সন্তানরা হলো- গত বছরের নভেম্বরে জন্ম নিয়েছে বনি রায়ে এবং আরকি (১), ফোয়েবে (২), হ্যালী (৩), ক্যাস্পার (৬), অস্কার (৭), টিল্লি (৮), ম্যাক্স (৯), জোশ (১১), অ্যামি (১২), এলি (১৩), জেমস (১৪), কেটি (১৫), মিলি (১৭), লিউক (১৮), ড্যানিয়েল (১৯), জ্যাক (২১), ক্লোয়ে (২৩), সোফি (২৪) ও ক্রিস (২৯)।

দেশটির একটি গণমাধ্যমকে সু বলেন, আমরা আর কোনো সন্তান চাই না। বনির মাধ্যমে আমাদের পরিবারের পূর্ণতা এসেছে বলে জানান তিনি।
অপরদিকে নোয়েল রেডফোর্ড বলেন, কিছু মানুষ ২-৩টি সন্তান নিয়েই তাদের পরিবারকে সম্পূর্ণভাবে। কিন্তু, আমাদের সম্পূর্ণতা এসেছে ২১ সন্তানের মাধ্যমে। এমনটাই জানিয়েছেন, ব্রিটেনের সব থেকে বড় পরিবারের খেতাব জয়ী বাবা নোয়েল রেডফোর্ড।

যে পেশার নারীদের ভৌতিক অভিজ্ঞতা বেশি হয়! পুরুষের চাইতে নারীরা অনেক বেশি মাত্রায় অতিলৌকিক অভিজ্ঞতা প্রাপ্ত হন অতিলৌকিক তত্ত্বে বিশ্বাসীরা বলে থাকেন। এটা হয়তো কথার কথা। কিন্তু সাম্প্রতিক এক সমীক্ষা জানাচ্ছে, এক বিশেষ পেশায় নিযুক্ত মানুষই সবচেয়ে বেশি ভৌতিক অভিজ্ঞতা লাভ করেন। এবং সেই পেশাটিতে নারীরাই অধিক পরিমাণে যুক্ত। জার্নাল অব সায়েন্টিফিক এক্সপ্লোরেশন’-এর করা এক সমীক্ষা জানাচ্ছে, নার্সিং পেশায় যুক্ত নারীরাই সব থেকে বেশি ভৌতিক অভিজ্ঞতা প্রাপ্ত হন।

এই জার্নালটি বিজ্ঞান বিষয়ক হলেও অতিপ্রকৃত বিষয়েও নিয়মিত চর্চা চালায়। সমীক্ষায় আরো জানানো হয়েছে, রোগীর মৃত্যুর সময়ে নার্সরাই সব থেকে কাছে থাকেন। কোনও ব্যক্তির মৃত্যু-মুহূর্তে আর কেউ না থাকলেও নার্সরা থাকেনই। সেই কারণেই সম্ভবত তারা এমন সব অভিজ্ঞতা লাভ করেন, বুদ্ধিতে যার ব্যাখ্যা পাওয়া ভার। এই সমীক্ষাটি করা হয়েছিল আর্জেন্টিনায় নার্স হিসেবে কর্মরত নারীদের মধ্যে। দেখা গিয়েছে!

সে দেশের নার্স পেশায় যুক্ত নারীদের ৫৫ শতাংশই অলৌকিক অভিজ্ঞাতার সম্মুখীন হয়েছেন। বেশির ভাগ নার্সই ডিউটিরত অবস্থায় ভৌতিক অভিজ্ঞতা লাভ করছেন বলে জানিয়েছেন। তাদের মতে, হসাপাতালগুলো বিদেহী আত্মার আড়ত। যখন তখন সেখানে ভূতের দেখা মেলে।
তবে ২০ শতাংশ নার্সেরই দাবি, তারা বেশ কয়েক বার মরণাপন্ন রোগীকে অলৌকিকভাবে মৃত্যুর হাত থেকে বেঁচে ফিরতে দেখেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*