শারীরিক সম্পর্কের পর যে বিষয়গুলো লুকিয়ে রাখেন নারীরা | পড়ুন বিস্তারিত ...

শারীরিক সম্পর্কের পর যে বিষয়গুলো লুকিয়ে রাখেন নারীরা

দাম্পত্য জীবনে শারীরিক সম্পর্কের পরবর্তী সময়ে শরীরে অনেক সমস্যা হয় নারীদের। তবে বেশিরভাগ নারীই লজ্জায় এ ব্যাপারগুলো কাউকে বলেন না! নারীদের ক্ষেত্রে এটি খুব সাধারণ একটি সমস্যা। অনেক নারীই হয়তো লজ্জায় কাউকে বলেন না বা চিকিৎসকের কাছে যেতে চান না। শারীরিক সম্পর্কের ফলে শরীর, হাত-পা, কোমরসহ বিভিন্ন স্থানে ব্যথা হতে পারে। তবে কম বয়সে যেসব নারীর বিয়ে হয়, তাদের ক্ষেত্রে ব্যথা হওয়াটা স্বাভাবিক বিষয় নয়। তবে অনেক নারী জানে না এটি একটি সমস্যা।

যৌ.ন সম্পর্ককালে এই অঙ্গে ব্যথা পাওয়া বা কষ্ট অনুভূত হলে অতি অবশ্যই বিষয়টির প্রতিকার করতে হবে। অন্যথায় স্থায়ী ক্ষতি হয়ে যাওয়াটা বিচিত্র কিছু নয়। শারীরিক সমস্যার কথা মেয়েরা কিছুতেই তার সঙ্গীকে বলতে চান না।

তারা মনে করেন, ছোটখাটো শারীরিক সমস্যার কথা সঙ্গীকে বললে, তাদের অকারণে বিব্রত করা হবে..আসুন জেনে নিই দাম্পত্য জীবনে শারীরিক সম্পর্কের পরবর্তী সময়ে যেসব সমস্যা লুকিয়ে রাখেন নারীরা।

শরীর ব্যথা: শারীরিক সম্পর্কের পরবর্তী সময়ে শরীর, হাত-পা, কোমর ব্যথা হতে পারে। শারীরিক সম্পর্কের সময়ে যৌ.নাঙ্গ যথেষ্ট পিচ্ছিল না হয়, তা হলে ভেতরে আঘাত পাওয়া খুবই স্বাভাবিক। এ ছাড়া এক্ষেত্রে ছিলে যাওয়া, জ্বালাপোড়া ইত্যাদি সমস্যা হয়ে থাকে।

শারীরিক চাহিদা: যৌ.নতা সম্পর্কে মেয়েরা চিরকালই একটি লাজুক। অনেক মেয়েই তার সঙ্গীর কাছ থেকে চাহিদামতো শারীরিক সুখ পান না। তবু তারা এ বিষয়টি নিয়ে সঙ্গীর সঙ্গে পরামর্শ করতে চান না।

সন্তান: পরিবারের ছোটখাটো সমস্যার কথা মেয়েরা তার সঙ্গীকে জানাতে চান না। যদি তার সন্তানের বিষয়েও কোনো সমস্যা হয়, তা হলেও তারা নিজেরাই সেই সমস্যা মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। একই সঙ্গে তারা তার স্বামী বা সঙ্গীকেও পাশে পেতে চান।

নিজের কর্মজগৎ: দাম্পত্য সম্পর্কের ক্ষেত্রে টাকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই কোনো মেয়ে যদি চান আলাদা একটা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতে, তা হলে তার সঙ্গী বা স্বামী বিষয়টি পছন্দ নাও করতে পারেন। তাই তারা এসব বিষয় সঙ্গীর থেকে লুকিয়ে রাখেন।

ইনফেকশন: সাধারণ ইস্ট ইনফেকশন বা ব্যাকটেরিয়া ঘটিত কোনো ইনফেকশনের কারণে এমনটি হয়ে থাকে। চিকিৎসকের পরামর্শ নিন এবং সঠিক চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ থাকুন। যৌ.নাঙ্গ সর্বদা পরিষ্কার রাখুন। নিজের যত্ন নিন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*